1. admin@sobujnagar.com : admin :
  2. sobujnoger@gmail.com : Rokon :
রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৩:৪৯ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ:
উপকূল সুরক্ষায় বিশেষ পরিকল্পনা গ্রহণের আহ্বান তানোর খাদ্যগুদামে দারোয়ানদের দৌরাত্ম্য বাঘায় পাল্টা পাল্টি কর্মসূচি আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের, সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক সিপিএসসি, র‌্যাব-৫, রাজশাহী কর্তৃক ভিকটিম উদ্ধার, অপহরণকারী  গ্রেফতার গাজা অফিসের কাছে হামলায় ২২ জন নিহত : রেডক্রস নয়াদিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে প্রধানমন্ত্রীকে আনুষ্ঠানিক সংবর্ধনা রাসেল ভাইপার নিয়ে আতঙ্ক নয়, বাড়াতে হবে সাবধানতা ও সচেতনতা : পরিবেশ মন্ত্রণালয় সিলেট ও সুনামগঞ্জে বন্যায় ২০ লাখের বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত : ইউনিসেফ গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের সেই গাছ কি আদৌ কথা বলে? আওয়ামী লীগ কচু পাতার উপর শিশির বিন্দু নয়: ওবায়দুল কাদের

কোটালীপাড়ার রামশীল ইউনিয়নে রাস্তা নির্মাণে বাধা, ভোগান্তিতে এলাকাবাসি

  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৮ জুন, ২০২৪
  • ১৯২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার রামশীল ইউনিয়নের খাগবাড়ি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ হতে বাবু পরিমল চৌধুরী বাড়ি পর্যন্ত সংযোগ সড়ক চলাচলের রাস্তা নির্মাণে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন বাসিন্দারা। এ অভিযোগ উঠেছে ওই গ্রামের মিলন হালদারের বিরুদ্ধে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, খাগবাড়ি গ্রাম নিম্ন এলাকা হওয়ায় বর্ষা মৌসুমে পানি জমায় চলাচলে ভোগান্তিতে পড়তে হয় এলাকার বাসিন্দাদের। ভোগান্তির কথা চিন্তা করে পরিবারের সদস্য এবং পাশের বাসিন্দাদের চলাচলের জন্য নিজ জমিতে একটি রাস্তা নির্মাণের উদ্যোগ নেন যজ্ঞেশ্বর চৌধুরী। ইতিমধ্যে রাস্তা নির্মাণের জন্য মাটি ফেলার কাজ শুরু করেন এলাকাবাসী। কিন্তু সরকারি জমির রামশীল খাগবাড়ি মৌজা নং ৬০,দাগ নং -১৭২৯ নিজের জায়গা দাবি করে নির্মাণকাজে বাঁধা দেন মিলন হালদার।এতে রাস্তা নির্মাণের কাজ বন্ধ হয়ে গেলে ভোগান্তি পড়ে বাসিন্দারা।

যজ্ঞেশ্বর চৌধুরী বলেন, বর্ষা মৌসুমে চলাচলের সময় প্রায় ২০০পরিবার পানি বন্দি হয়ে ভোগান্তি হওয়ার কারণে আমার ৮০০ফিট জমির ওপর দিয়ে একটি রাস্তা নির্মাণের উদ্যোগ নেই। ইতিমধ্যে মাটি ফেলার কাজও শুরু করি। কিন্তু মিলন হালদার নিজের জায়গা দাবি করে রাস্তাটির কাজ করতে দিচ্ছেন না। এমনি আদালতেও একটি মিথ্যা মামলা করেছেন। এতে চরম বিপাকে পড়তে হচ্ছে। মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ দ্রুত যাতে সড়কটি নির্মাণ করে ভোগান্তি কমানোর জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানিয়েছেন তিনি।

যজ্ঞেশ্বর চৌধুরী তিনি আরো বলেন, রাস্তাটি সরকারি জায়গার উপর দিয়ে ৩০০ফিট হয়ে আমাদের জমির ওপর দিয়ে করা হচ্ছে। রাস্তাটি হলে এখানকার মানুষের উপকার হবে। রাস্তাটির কিছু অংশ সরকারি খাস জমির ওপর দিয়ে যাচ্ছে। মিলন হালদার সরকারি খাস জমি আনুমানিক দীর্ঘ ৫০বছর ধরে ভোগদখল করেন। তিনি তা নিজের জমি দাবি করে রাস্তাটির কাজ বন্ধ করে দেন। আমি প্রশাসনের কাছে দাবি জানাই, দ্রুত বিষয়টি সুরাহা করে রাস্তা নির্মাণের সকল বাঁধা যেন দূর করা হয়।

এ বিষয়ে বক্তব্য নিতে অভিযুক্ত মিলন হালদার সঙ্গে যোগাযোগে চেষ্টা করা হলেও তার সঙ্গে যোগাযোগ করার সম্ভব হয়নি।#

এই সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায় সিসা হোস্ট